Tuesday, July 23, 2024
বাড়িখবরশীর্ষ সংবাদনিত্য বিদ্যুৎ যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ খোয়াই বাসি।দপ্তর কুম্ভ নিদ্রায় ।

নিত্য বিদ্যুৎ যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ খোয়াই বাসি।দপ্তর কুম্ভ নিদ্রায় ।

খোয়াই প্রতিনিধি ৭ই মে…..একবিংশ শতাব্দীতে দাঁড়িয়ে বর্তমান সময়ে জনগণের জীবনযাত্রার মান দিন দিন উন্নত থেকে উন্নতির দিকে ধাবিত হচ্ছে। অথচ এই আধুনিক যুগে দাঁড়িয়ে থেকেও বর্তমান সময়ে অনেক মহাকুমার জনগণের বিদ্যুৎ বিহীন জীবনযাত্রা অতিবাহিত করা খুবই কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। দেখা গেছে খোয়াই মহকুমার বিদ্যুৎ ভোক্তাদের বিদ্যুৎ পরিষেবা প্রদান করার জন্য সেই রাজন্যকালের সময় থেকে পরিষেবা স্বাভাবিক রাখার জন্য মানদাতার আমলের কয়েকটি ফিটারের মাধ্যমে বিদ্যুৎ পরিষেবা প্রদান করা হচ্ছে। তার মধ্যে খোয়াই শহর এবং শহর লাগোয়া শহরতলী এলাকাগুলির জন্য বিদ্যুৎ পরিষেবা প্রদানের জন্য যেই সব বিদ্যুৎ ফিডার গুলি আছে এই ফিডারের অন্তর্গত বিদ্যুৎ ভোক্তাদের অভিযোগ বিদ্যুৎ দপ্তর পরিষেবা প্রদানে একেবারে ব্যর্থ। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ফিটার হলো আশারাম বাড়ি ফিডার এই ফিডারের অন্তর্গত বিদ্যুৎ ভোক্তাদের বিদ্যুৎ পরিষেবা এমন জায়গাতে গিয়ে ঠেকেছে সাধারণ হালকা বাতাস বা এক ফোটা বৃষ্টির জল পড়লেই বিদ্যুৎ পরিষেবা বন্ধ করে দেয় বিদ্যুৎ দপ্তর। আর এই পরিষেবা স্বাভাবিক করতে গিয়ে দুই থেকে তিন দিন লেগে যায় বিদ্যুৎ দপ্তরের তাতে করে সাধারণ ভোক্তারা অতিষ্ঠ হয়ে ওঠে। বিদ্যুৎ দপ্তরে কিছুদিন পরপর দপ্তরের সিনিয়র ম্যানেজার বা তার সমতুল্য আধিকারিকের বদলি করেন অন্যদিকে সাধারণ জনগণের অভিযোগ দপ্তরের আধিকারিকের পরিবর্তনের মাধ্যমে কি বিদ্যুৎ পরিষেবা স্বাভাবিক করা যায়। খোয়াই মহকুমা এলাকাতে সেই মানদাতার আমলের সিস্টেম বা বিদ্যুতের লাইন টানা হয়েছে সেই বিদ্যুৎবাহী তার বা লাইনের সারাইয়ের কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় না দীর্ঘকাল ধরে। সাধারণ ভোক্তারা অভিযোগ তুলছেন বিদ্যুত মাসুল বৃদ্ধি করার ক্ষেত্রে বিদ্যুৎ দপ্তর অগ্রণী ভূমিকা পালন করলেও বিদ্যুৎ পরিষেবা প্রদানের ক্ষেত্রে বিদ্যুৎ দপ্তর একেবারে পেছনের সারিতে। খোয়াই শহর লাগাওয়া শহরতলী এলাকাগুলি অর্থাৎ আশারামবাড়ী ফিডারের অন্তর্গত বিদ্যুৎভোক্তারা বিদ্যুৎ বিভ্রাট এর জন্য ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে দীর্ঘদিন ধরে। বর্ষাকালীন সময়ে বিদ্যুৎ বিভ্রাটের পরিমাণ এতটাই বৃদ্ধি পায় যে এই ফিডারের অন্তর্গত বিভিন্ন এলাকায় একবার বিদ্যুৎ পরিষেবা প্রাকৃতিকগুলো যুগের কারণে ছিন্ন হলে স্বাভাবিক করতে দপ্তরের তিন থেকে চার দিন লেগে যায়। আর এতে করে স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় ব্যাঘাত ঘটে বিদ্যুৎ ভোক্তাদের। খোয়াই শহর বাদ দিলে শহরতলী এলাকাগুলিতে বিদ্যুৎ পরিষেবা এতটাই অস্বাভাবিক সাধারণ বিদ্যুৎ ভক্তরা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। সোমবারের সাধারণ বৃষ্টি ও হালকা বাতাসে খোয়াই শহর ও শহরতলী এলাকাগুলি সন্ধ্যার পর অন্ধকারে আচ্ছন্ন হয়ে যায় রাত্র দশটার পর শহর এলাকার বিদ্যুৎ পরিষেবা স্বাভাবিক করলেও শহরতলীর বিভিন্ন এলাকা গুলিতে বিদ্যুৎ পরিষেবা স্বাভাবিক করতে দপ্তরের কর্মরত কর্মীদের দৌড়ঝাঁপ পরিলক্ষিত হয়।কিন্তু গত ২৪ ঘন্টার ভিতর বিভিন্ন এলাকার বিদ্যুৎ পরিষেবা স্বাভাবিক করতে পারেনি দপ্তর। যদিও জোড়া তালি দিয়ে কোনরকমে পরিষেবা স্বাভাবিক করলেও আবার হালকা বাতাস বা বৃষ্টি হলে পরিষেবা বন্ধ হয়ে যাবে। সাধারণ ভোক্তাদের দাবি অতি দ্রুত সেই মানদাতার আমলের পরিষেবা থেকে বের হয়ে দপ্তর স্বাভাবিক পরিষেবাতে এগিয়ে আসতে। এখন দেখার বিষয় দপ্তর এই সমস্ত কর্মকান্ডের জন্য আগামী দিনে কি পদক্ষেপ গ্রহণ করে এবং কি ধরনের পরিষেবা দেয় ঝড় বাদলের দিনে।

     বাসুদেব ভট্টাচার্জি খোয়াই।
RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

5 × two =

- Advertisment -spot_img

জনপ্রিয় খবর

সাম্প্রতিক মন্তব্য