Wednesday, February 28, 2024
বাড়িখবরশীর্ষ সংবাদখোয়াই শহরে নিশি কুটুম্বদের তাণ্ডব অব্যাহত।কুম্ভ নিদ্রায় মহাকুমা পুলিশ পুলিশ ক্ষোভে ফুষছে...

খোয়াই শহরে নিশি কুটুম্বদের তাণ্ডব অব্যাহত।কুম্ভ নিদ্রায় মহাকুমা পুলিশ পুলিশ ক্ষোভে ফুষছে জনগণ।

খোয়াই প্রতিনিধি ৭ই জানুয়ারি….একটা সময় ছিল সংস্কৃতির সহর হিসেবে খোয়াই শহরের নাম রাজ্য সহ বহিরাজ্যের মানুষও সম্মানের সহিত আলোচনা করতো।কিন্তু বর্তমান সময়ে সেই সংস্কৃতির শহরটি খোয়াই নেশা কারবারী ও নিশি কুটুম্বদের আতুর ঘর তৈরি হয়ে রয়েছে বর্তমানে। এক দিকে নেশা কারবাড়ি অন্যদিকে নিশি কুটুম্বের তান্ডবে অতিষ্ঠ খোয়াই মহাকুমা বাসি।আর এখন তো প্রতিদিন চলছে রাতের বেলা চুরির ঘটনা ।তেমনি ভাবে আবারো শনিবার রাতে খোয়াই শহরে চুরির ঘটনা সংঘটিত করলো নিশি কুটুম্বের দল। ঘটনার বিবরণে জানা যায় শনিবার গভীর রাতে কোন এক সময়ে খোয়াই জেলা হাসপাতাল সংলগ্ন অনবদ্য পেট্রোল পাম্পে দাঁড়িয়ে থাকা একটি টি আর ০৬ এ ১৭২৩ নম্বরের একটি ট্রাক পার্কিং করা ছিল।সেই ট্র্যাকের মালিক খোয়াই ধলাবিল এলাকার বাসিন্দা পিন্টু দেবের।অভিযোগ মূলে মালিক পিন্টু দেব জানান উনার ট্রাক গাড়ির ব্যাটারি এবং তেল চুরি করে নিয়ে যায় নিশি কুটুম্বের দল। এই ঘটনাটি রবিবার সকালে গাড়ির মালিক প্রত্যক্ষ করে এবং খবর দেয় খোয়াই সুভাষ পার্ক আউট পোস্টে এবং ছুটে আসে পুলিশ। চুরির ঘটনার কুল কিনারা করতে পেট্রোল পাম্পে লাগানো সিসি টিভির ফুটেজ পর্যবেক্ষণ করে পুলিশ যদিও কোন লাভ হয়নি। গাড়ির মালিক পিন্টু দেব সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে জানান, শুধুমাত্র এই পেট্রোল পাম্পের মধ্যেই দাঁড়িয়ে থাকা গাড়িগুলিতে একের পর এক চুরি কান্ড সংঘটিত হচ্ছে। এই চুরির ঘটনার কয়েকদিন আগেও পাম্পে থাকা একটি স্কুল বাসে চুরি-কাণ্ড সংঘটিত করে চুলের দল। উল্লেখ্য একের পর এক চুরির ঘটনা ঘটে চলেছে খোয়াইতে।তাতে করে রাতেরবেলায় খোয়াই মহকুমা বাসি ব্যাপক নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছে প্রতিনিয়ত। যা নিয়ে চিন্তিত সংস্কৃতির শহরের মানুষজন। অথচ দেখা গেছে সুভাষ পার্ক পুলিশ ফাঁড়ি থেকে ২০০ মিটার দূরত্বের মধ্যে গত কয়েক দিনের মধ্যে বেশ কয়েকটি চুরি ঘটনা ঘটেছে শ্রীকৃষ্ণ মন্দির, শনি মন্দির ও একটি মিষ্টির দোকানে এবার চুরি হল পেট্রোল পাম্পে দাঁড়িয়ে থাকা গাড়ি গুলিতে অথচ এই বিষয়ে পুলিশ একেবারেই অকর্মণ্য তার পরিচয় দিচ্ছে বলে মন্তব্য করছেন খোয়াই বাসি। দিনের বেলায় পুলিশ ২০৮ নং জাতীয় সড়ক সহ খোয়াই শহরের বিভিন্ন রাস্তায় দাঁড়িয়ে তল্লাশির নাম করে বিভিন্ন যানবাহন থেকে টাকা আদায় ব্যস্ত থাকে সরকারি কোষাগারকে ফুলিয়ে ফাপিয়ে তোলার জন্য এরপর সন্ধ্যের পর থেকে সারাদিন ক্লান্ত হয়ে ঘুমিয়ে পড়ে আর অন্যদিকে খোয়াই শহরকে নেশা কারবারি ও নিশু কুটুম্বের হাতে ছেড়ে দিয়ে খোয়াই শহরের পুলিশ নাকে তেল দিয়ে ঘুমাচ্ছে যার ফলে প্রতিদিন এই ধরনের চুরির ঘটনা ঘটছে প্রত্যেকটি এলাকাতে তাতে করে খোয়াই এর জনগণ প্রচন্ড ক্ষিপ্ত হয়ে রয়েছে পুলিশের উপর।

RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

- Advertisment -spot_img

জনপ্রিয় খবর

সাম্প্রতিক মন্তব্য