Sunday, April 21, 2024
বাড়িখবরশীর্ষ সংবাদত্রিপুরা গ্রামীণ ব্যাংকের ৪৮ তম প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে খোয়াই জেলাভিত্তিক মেগা ঋণ...

ত্রিপুরা গ্রামীণ ব্যাংকের ৪৮ তম প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে খোয়াই জেলাভিত্তিক মেগা ঋণ মেলার আয়োজন করা হয় খোয়াই পুরাতন টাউন হলে।

বাসুদেব ভট্টাচার্য খোয়াই ২০ শে ডিসেম্বর……ত্রিপুরা গ্রামীণ ব্যাংকের ৪৮ তম প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে বুধবার বিকাল তিনটা নাগাদ খোয়াই পুরাতন টাউন হলে অনুষ্ঠিত হলো জেলা ভিত্তিক এক মেগা ঋণ মেলার শিবির।উক্ত শিবিরের উদ্বোধন করেন খোয়াই জিলা পরিষদের সভাধিপতি জয়দেব দেববর্মা।এছাড়া অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিধায়ক পিনাকী দাস চৌধুরী ,খোয়াই পুর পরিষদের চেয়ারম্যান দেবাশীষ নাথ শর্মা,ত্রিপুরা গ্রামীণ ব্যাংকের রিজনাল ম্যানেজার শ্রীমতি পায়েল সাহা মহোদয়া এবং এই অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন এল ডি এম সুব্রত মন্ডল ।এ ছাড়া উক্ত ঋণ মেলা শিবিরে উপস্থিত ছিলেন খোয়াই জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে আগত এস এস জি গ্রুপের মহিলারা।উক্ত অনুষ্ঠানে স্বাগত ভাষণ রাখতে গিয়ে গ্রামীণ ব্যাংকের রিজনাল ম্যানেজার শ্রীমতি পায়েল সাহা বলেন আজ থেকে ৪৮ বছর আগে ১৯৭৬ সালের ২১শে ডিসেম্বর দিনটি থেকে ত্রিপুরা গ্রামীণ ব্যাংক কাজ শুরু করে গুটি গুটি পায়ে এগিয়ে আজ এই জায়গায় এসে দাঁড়িয়েছে।বর্তমানে গ্রামীণ ব্যাংকের নিজস্ব অ্যাসেট রয়েছে ১২ হাজার কোটি টাকা।তৎকালীন সময় দুই লক্ষ টাকার মূলধন নিয়ে জনগণের জন্য কাজ করতে নেমে আজ এত বড় বিশাল অংকের মালিক গ্রামীণ ব্যাংক। তৎকালীন সময়ে রাজ্যে গ্রামীণ ব্যাংকের পাঁচটি শাখা কে হাতে নিয়ে কাজ করা শুরু করে।গ্রামীন ব্যাংকের ৪৮ তম প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে বুধবার অনুষ্ঠানের দিন সহ গত দশ দিন ধরে ৩২২ জন বিভিন্ন এস এস জি গ্রুপের মহিলাদের হাতে বিভিন্ন অংকের টাকা চেকের মাধ্যমে ১১ কোটি ৭৬ লক্ষ টাকার ঋণ প্রদান করা হয়েছে বলে জানান ব্যাংকের রিজনাল ম্যানেজার শ্রীমতি পায়েল সাহা।এই দিন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে খোয়াই মহারাজগঞ্জ বাজারের দুজন ব্যবসায়ি তথা প্রবীন নাগরিককে সংবর্ধনা দেওয়া হয় একজন হল খোয়াই গ্রামীণ ব্যাংকের সর্ব প্রথম গ্রাহক বিপুল চন্দ্র পাল অন্য জন হল কালা বরণ পাল ।খোয়াই মহারাজগঞ্জ বাজারে এই কালা বরণ পালের বাড়িতেই প্রথম গ্রামীণ ব্যাংকের উদ্বোধন হয় এবং তিনি ওই ব্যাংকের দ্বিতীয় গ্রাহক ছিলেন ।এই দিন অনুষ্ঠানের মঞ্চে বসিয়ে ওই দুজন প্রবীণ নাগরিক তথা দুজন ব্যবসায়ীকে গ্রামীণ ব্যাংকের রিজনাল ম্যানেজার শ্রীমতি পায়েল সাহা ফুলের তোড়া, উত্তরীয় এবং সালের চাদর পরিয়ে সংবর্ধনা দেন ।এবং এই অনুষ্ঠানে আগত বিভিন্ন এস এস জি গ্রুপের মহিলাদের হাতে অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথিরা ঋণ মেলার চেক তুলে দেন ।শেষে অনুষ্ঠানের মুখ্য অতিথি বিধায়াকী দাস চৌধুরী বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন আজ থেকে ৪৮ বছর আগে গ্রামীণ ব্যাংকের পথ চলা শুরু হয়েছিল।তৎকালীন সময়ের সরকার চিন্তা করেছিলেন যে দেশকে যদি উন্নতি করতে হয় তাহলে আগে গ্রাম এবং গ্রামের মানুষদের উন্নতির কথা চিন্তা করতে হবে সেই চিন্তা ধারাকে পাথেয় করে এই গ্রামীণ ব্যাংকের উৎপত্তি।এরপর থেকেই গ্রামীণ ব্যাংক পথ চলা শুরু করেছিল আর সেই ব্যাংক আজ গর্বের সাথে মাথা উঁচু করে রাজ্যে বাসির জন্য বিভিন্ন ধরনের কাজ করে চলেছে।পাশাপাশি গ্রাহক পরিসেবার দিক দিয়ে গ্রামীণ ব্যাংকের বেশ সুনাম রয়েছে তাছাড়া রাজ্যের জনগণের জন্য গ্রামীণ ব্যাংক বিভিন্ন ধরনের স্কিম চালু করে ঋণ দানের ব্যবস্থাও করে থাকে।যদিও কাজে অনেক কিছু ভুল ত্রুটি হয়ে থাকে সেই গুলিকে শুধরে নিলে আগামী দিন গ্রামীণ ব্যাংক আরো উচ্চ শিখরে যাবে বলে আশা ব্যক্ত করেন বিধায়ক পিনাকী দাস চৌধুরী। উপস্থিত গ্রামীণ ব্যাংকের ঋণ গ্রহীতারা তাদের চোখে মুখে অনেকটাই আনন্দের ছাপ পরিলক্ষিত হয়। রিজনাল ম্যানেজার শ্রীমতি পায়েল সাহা ঋণ গ্রহীতাদের উদ্দেশ্যে বলেন ঋণ গ্রহীতাদের ব্যবসার আরো শ্রীবৃদ্ধি ঘটুক এবং ওরা যাতে আরো ভালো ব্যবসা করতে পারে এর জন্য তাদের প্রতি শুভকামনা জানান।

RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

- Advertisment -spot_img

জনপ্রিয় খবর

সাম্প্রতিক মন্তব্য