Monday, February 26, 2024
বাড়িখবরশীর্ষ সংবাদবাংলা ভাষাকে ধ্রুপদী ভাষার মর্যাদা প্রদানের বিষয়ে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারকে সদর্থক...

বাংলা ভাষাকে ধ্রুপদী ভাষার মর্যাদা প্রদানের বিষয়ে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারকে সদর্থক ভূমিকা গ্রহণের জন্য খোয়াই জেলা গ্রন্থাগারে সাংবাদিক সম্মেলন ও আলোচনা চক্রের আয়োজন করা হয়।

খোয়াই প্রতিনিধি ১৫ই অক্টোবর….ভারতবর্ষের বাংলা ভাষাকে ধ্রুপদী ভাষার মর্যাদা প্রদানের বিষয়ে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারকে সদর্থক ভূমিকা গ্রহণ করার জন্য রবিবার সকালে বাংলা অকাদেমী খোয়াই জেলা কমিটির উদ্যোগে সাংবাদিক সম্মেলন ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।
এইদিন সকাল ১১ঃ৩০ মিনিটে খোয়াই জেলা গ্রন্থাগারে বাংলা অকাদেমী খোয়াই জেলা কমিটির উদ্যোগে সাংবাদিক সম্মেলন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় খোয়াই জেলা গ্রন্থাগারে। এদিন অনুষ্ঠানের প্রথমে স্বাগত ভাষণ রাখেনবাংলা আকাদেমি খোয়াই জেলা কমিটির সচিব জহরলাল দাস।এই দিন সাংবাদিক সম্মেলনে বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করতে গিয়ে বাংলা আকাদেমি ত্রিপুরা সচিব কৃষ্ণ কুসুম পাল বলেন মূল বিষয় হলো বাংলা ভাষাকে ধ্রুপদী ভাষার মর্যাদা প্রদান এ বিষয়ে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারকে সদর্থক ভূমিকা গ্রহণের বিষয়ে আলোচনা করেন । ইতিমধ্যেই দেশে প্রচলিত ছটি ভাষাকে ধ্রুপদী বা ক্লাসিক্যাল ভাষায় স্বীকৃতি দিয়েছে দেশের কেন্দ্রীয় সরকার। এই তালিকার মধ্যে সর্বপ্রথম স্থান পেয়েছিল তামিল ভাষা, সংস্কৃত ,তেলুগু, কান্নার, মালায়ালাম, ও সবশেষে ২০১৪ সালে উড়িষ্যা ভাষাকে ধ্রুপদী ভাষায় মর্যাদা প্রদান করা হয়েছিল। একটি ভাষাকে ধ্রুপদী ভাষায় পদমর্যাদা পেতে গেলে পূরণ করতে হয় কেন্দ্রীয় সরকার নির্ধারিত বেশ কয়েকটি মানদন্ড। যেগুলির মধ্যে প্রথম ও অন্যতম শর্ত হলো সংশ্লিষ্ট ভাষাকে ১৫০০ বছর বা তার বেশি পুরনো নথি থাকতে হবে। উন্নত মানের সাহিত্য সৃষ্টির উদাহরণ থাকতে হবে। সদ্য প্রকাশিত জাতীয় শিক্ষানীতি ২০২০ এ ধ্রুপদী বা ক্লাসিক্যাল ভাষা সংক্রান্ত কয়েকটি সুপারিশ করা হয়েছে। এই সুপারিশ গুলির মধ্যে সংস্কৃত পালি ও প্রাকৃতির মতো সুপ্রাচিন ভাষা ছাড়া আরো বেশ কয়েকটি আধুনিক ভারতীয় ভাষার ক্লাসিক্যাল রূপ গুলিকে পঠন-পাঠনের আওতায় আনার কথা বলা হয়েছে। তাই বাংলা ভাষাকে ধ্রুপদী ভাষার মর্যাদা প্রদান করতে কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারকে সদর্থক ভূমিকা গ্রহণ করতে এদিনের এই সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত অন্যান্য বক্তারাও আলোচনা করেন। এছাড়া বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ধানেশ পাল এই বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করেন।এই দিন সাংবাদিক সম্মেলন এবং আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাহিত্য একাডেমী ত্রিপুরা প্রদেশের সম্পাদক কৃষ্ণ কুসুম পাল, পুরো পরিষদের চেয়ারম্যান দেবাশীষ নাথ শর্মা, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ দানেশ পাল, বাংলা একাদেমির সহ-সভাপতি নিতাই চন্দ্র দেবনাথ , খোয়াই জেলা কমিটির সভাপতিu মনোরঞ্জন গোপ নাট্য ব্যক্তিত্ব ও ক্রীড়া বিদ অভিক প্রসাদ চক্রবর্তী ,বিভিন্ন কবি সাহিত্যিক সহ অন্যান্য বিশিষ্ট অতিথিরা ও উপস্থিত ছিলেন এই অনুষ্ঠানে।

RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

- Advertisment -spot_img

জনপ্রিয় খবর

সাম্প্রতিক মন্তব্য