Sunday, April 21, 2024
বাড়িখবররাজ্যতিপ্রামথা সুপ্রিমোকে দল সমেত প্রদেশ কংগ্রেসে যোগদান করে দলের দায়িত্ব নেবার আহ্বান...

তিপ্রামথা সুপ্রিমোকে দল সমেত প্রদেশ কংগ্রেসে যোগদান করে দলের দায়িত্ব নেবার আহ্বান প্রদেশ কংগ্রেসের

কেন্দ্রে একদিকে যেমন ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া হয়ে রয়েছে কংগ্রেস। তদরুপ রাজ্য রাজনীতিতেও ঘুরে দাঁড়াতে চেষ্টা করে চলেছে ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেস। সাংগঠনিক দিক থেকেও যেন প্রদেশ কংগ্রেস নিজেদের গুছিয়ে নিতে তৎপর। সদ্য পরিবর্তন হয়েছে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির। বিরজিত সিনহার স্থলাভিশিক্ত হয়েছেন পোড় খাওয়া রাজনীতিবিদ আশিস কুমার সাহা। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে চষে বেড়াচ্ছেন সংগঠনকে মজবুত করতে। এই পরিস্থিতিতে সোমবার কংগ্রেস এক যোগদান সভায় চমক দেখালো। এই কঠিন পরিস্থিতির মধ্যেও কংগ্রেস দল রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মোট একহাজার চারশত তিয়াত্তর জনজাতি পরিবার থেকে সাতহাজার চারশত তেইস জন ভোটারকে নিজেদের দলে নিয়ে আসতে সক্ষম হল। এই যোগদান কারীদের মধ্যে রয়েছেন সিপিআই দলের প্রাক্তন নেতা এবং প্রাক্তন বামফ্রন্ট মন্ত্রিসভার মন্ত্রী মনিন্দ্র রিয়াং । এই উপলক্ষে এদিন রাজধানী আগরতলার পোস্ট অফিস চৌমুহনীস্থিত প্রদেশ কংগ্রেস ভবন প্রাঙ্গণে এক যোগদান সভার আয়োজন করা হয়। এদিনের এই সভায় উপস্থিত ছিলেন কংগ্রেস বিধায়ক সুদীপ রায় বর্মন, ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি আশীষ কুমার সাহা, সর্বভারতীয় কংগ্রেস সম্পাদিকা এবং ত্রিপুরা রাজ্যের অবজারভার জারিতা লাইতপ্রাং প্রমূখ। এই সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে সুদীপ রায় বর্মন বলেন ত্রিপুরা রাজ্যের জনজাতিদের যেটুকু উন্নয়ন হয়েছে তা সম্ভব হয়েছে কংগ্রেস সরকারের জন্য। জনজাতি মানুষ ধীরে ধীরে তা বুঝতে সক্ষম হয়েছেন তাই তারা আবার কংগ্রেসের ফিরে আসতে শুরু করেছেন। বর্তমান বিজেপি সরকার মুখে বললেও জনজাতি অংশের মানুষের জন্য কোন কাজ করেনি। কংগ্রেস জনজাতি অংশের মানুষের জন্য যে সকল প্রকল্প চালু করেছিল এই প্রকল্প গুলোকে শুধু নাম পরিবর্তন করেছে বিজেপি। নতুন করে জনজাতির জন্য কোন কিছু করেননি বলে অভিযোগ করেন তিনি। পাশাপাশি তিনি এদিন সভা থেকে তিপ্রামথা দলের সুপ্রিমো প্রদ্যুৎ কিশোর দেববর্মনের প্রতি আহবান রাখেন তাদের গোটা দল নিয়ে কংগ্রেসের সাথে মিশে যাওয়ার জন্য। তিনি বলেন কংগ্রেস সব সময় রাজ পরিবারকে সম্মান করে আসছে। তাই রাজ পরিবারের সদস্য কিরীটি বিক্রম মানিক্যকে কংগ্রেস সাংসদ করেছিল, একইভাবে মহারানী বিভু কুমারী দেবীকে মন্ত্রী এবং সাংসদ করেছিল। তাই তিনি প্রদ্যুৎ কিশোর দেব বর্মনের কাছে আবারো আহবান রাখেন তাদের গোটা দল কংগ্রেসের সাথে মিশে যাওয়ার জন্য। এমনকি ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি হওয়ার জন্য প্রদ্যুৎ কিশোরকে প্রস্তাব দেন এদিন।এদিন সুদীপ বাবু রাজ্যের আদিবাসীদের সমর্থনে তাদের দলীয় দাবি দাওয়া গুলো তুলে ধরেন। যেখানে আর্টিকেল ৩৭১ , টি টি এ ডি সি’র নাম পরিবর্তন করে ত্রিপ্রা টেরিটোরিয়াল কাউন্সিল করা, ককবরকে রোমান স্ক্রিপ্ট, টি টি এ ডি সি তে সরাসরি ফান্ডিং ইত্যাদি রয়েছে। রাজনৈতিক বিশ্লেষক মহল মনে করছে অন্যান্য সম্প্রদায়ের পাশাপাশি প্রদেশ কংগ্রেস রাজ্যের জনজাতি ভোটারদের খুবই গুরুত্ব দিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এদিনের যোগদান সভার পাশাপাশি সুদীপ বাবুর বক্তব্য থেকেও তা অনেকটা স্পষ্ট হয় এদিন। তিনি জানান রাজ্যের জনজাতিদের দাবি দাওয়া নিয়ে নভেম্বরে সংসদ অধিবেশনের সময় দিল্লিতে তাদের নিয়ে গিয়ে ধর্না কার্যক্রম করা হবে। সুতরাং এর থেকেই এমন একটা আভাস পাওয়া যাচ্ছে বলে মনে করছে সংশ্লিষ্ট মহল। দেখার বিষয় প্রদেশ কংগ্রেসের এই রন কৌশল থেকে সামনের দিনগুলিতে রাজ্য রাজনীতিতে আর কি চিত্র দেখা যায়।

RELATED ARTICLES

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

- Advertisment -spot_img

জনপ্রিয় খবর

সাম্প্রতিক মন্তব্য